বিয়ের দিন গাড়িতে উঠানোর পর বউ আর বর এর কিছু আলাপন❤

বিয়ের দিন গাড়িতে উঠানোর পর বউ আর বর এর কিছু আলাপন❤

 

❤বিয়ের দিন গাড়িতে বর আর বউকে উঠানো র পর বউ আর বর এর কিছু আলাপন……
বরঃ এই মেয়ে শুনো তুমি কাঁদছ কেন?
বউঃ চুপ করে রইলো কোন কথা বলল না।
বরঃ তোমার কাছে কিছু জানতে চেয়েছিলাম আমি?
বউঃ এমন উদ্ভট প্রশ্নের কি উত্তর দিবো আমি বলেন?
বরঃ মানে কি?
বউঃ মানে আবার কি?বুজেন না? বিয়ে হলে মেয়েরা কাদে কেন? সেই প্রশ্নের। জবাব টা আগে আপনে দিয়ে দেন?
বরঃ বাবারে এটা আবার না বলার কি আছে, কারন ওদের সব আপন মানে কাছের মানুষগুলোকে ফেলে আসে তাই কান্না করে।
বউঃহ্যা তবে এবার আপনেই বলেন না এটা কি উদ্ভট প্রশ্ন ছিল কি না।
বরঃ হ্যা, আসলেই তোমার সঙ্গে কথা বলার কোন বিষয় খুজে পাচ্ছিলাম না তাই আর কি?
বউঃ ও তাই বুঝি? এমন উদ্ভট প্রশ্ন দিয়ে শুরু করলেন।
বরঃ হ্যা, তবে এবার তুমি সত্যিই, সত্যিই কান্না করাটা থামাও।
বউঃ কেন?
বরঃ বারে এই যে তুমি এখন কান্না করতেছো এটা তো তোমার ভাই,বোন, মা,বাবা কেউ দেখতে পারছে না, তবে কেন শুদু শুদু কান্না করে তোমার চোখের কাজলটা নষ্ট করতেচো?
বউঃ আপনে তো দেখচি বড় অদ্ভুত মানুষ, আপনাকে কে বলল যে আমি ওনাদের দেখানোর জন্য কান্না করতেচি? এখন তো আমার মনে হচ্ছে আপনি ও কাউকে দেখিয়ে, দেখিয়ে কান্না করেন।
বরঃ হে আমি তো তাই করি
বউঃ মানে?
বরঃ মানে কিছুই না, প্লিজ আার কান্না করো না।
বউঃ কান্নাই তো করতেছি আর তো কিচু না। এটা করলে কি এমন ক্ষতি হয়ে যাবে আমার শুনি?
বরঃ কারন তোমার চোখের যে কাজল দিয়েচো সেটা নষ্ট হয়ে যাবে।
বউঃ আচ্ছা আপনে বার, বার কাজল কাজল করেন কেন? আমার কষ্টের লাগা থেকে কি কাজলটা বড় হয়ে গেলো নাকি?
বরঃ না,মানে আমি ভাবচিলাম তোমার চোখের কাজলটা আমি উঠাই দিবো, অনেক ভালোবেসে যত্ন করে, কিন্তু দেখনা আমার থেকে বেচারা টিস্যু টার ভাগ্যটাই কত ভালো আমার আগে ওটাই তোমার ভালবাসাটা পেয়ে গেলো
বউঃ এবার হেসেই ফেল্লো, আপনে না পারেন ও বটে।
বরঃ যাই হোক একটু হলেও তো হাসলে এবার, একটা কথা বল্লে রাগ করবে না তো।
বউঃ না,রাগ করবো কেন?বলেন কি কথা।
বরঃ তোমার হাসিটা না…ইয়ে মানে. বলল
বউঃ হে, বলেন…?
বরঃ একটুকুও…..
বউঃ একটুকুও কি?বলেন
বরঃ সুন্দর না।
বউঃ তাই নাকি
বরঃহ্যা তাই, কথাটা শুনে অভিমান হলো বুঝি।
বউঃ কই,না তো।একদমইনা
বরঃ মুখ দেখে তো মনে হচ্ছে আজ ঐ যে, আকাশে ঘন মেঘ করেছে, বৃষ্টিটা বুজি মনে হয় আমার সামনেই হবে।
বউঃ কই, কোথায় মেঘ করেছে, আমি তো দেখতে পারতেছি না।
বরঃ এই তো আমার সামনে, সেটা তুমি দেখতে পারবে না আমি দেখতে পাচ্ছি।
বউঃ ও, আচ্ছা, তার মানে আপনিএক জায়গায় আছেন আর আমি অন্য যায়গায় আছি তাই না?
বরঃ ঠিক সেটা না, দু জনেই একই জায়গায় আছি তবে মেঘটা যে শুধু আমারই চোখেই ধরা পডেচে
বউঃ ও….ও,,ও.
বরঃ একটা কথা বলব?
বউঃ জিনা থাকুক,, না জানি এখন আবার বলে বসবেন তুমি তো কথাই বলতে পারো না।
বরঃ না,গো তেমন কিছু না।প্লিজ বলি….
বউঃ ওকে বলেন,,শুনি,
বরঃ তোমার রাগ করা টা না,,,,,
বউঃ থাক আর শুনতে চাই না। আমিই বলে দিচ্ছি খুব বাজে দেখতে লাগে তাই তো?
বরঃ না।
বউঃতবে….কি শুনি?
বরঃ অনেক সুন্দর।
বউঃ এবার মুচকি হেসে দিলো।😀
বরঃ আসলেই জানো তো তোমার হাসিটা না আরো অনেক, অনেক সুন্দর।
বউঃ এবার একটু অবাক হয়ে প্রশ্ন করলো, তবে কি তখনকার হাসিটা অন্য কারোও ছিল বুজি?
বরঃ না, তোমারি ছিলো
বউঃ তবে এখন এটা সুন্দর কি করে হলো
বরঃ আসলে তোমার অভিমানটা দেখার জন্যই এইভাবে বলেছিলাম।
বউঃ এবার প্রান খুলা হেসে পেল্লো
বরঃ আমি সারাটা জীবন দোরে তোমার মুখে যেন এই হাসিটাই আমি দেখতে পাই……..!
(প্রতিটি স্বামী, স্ত্রী এর জীবনে এমন হাসিটাই ফোটে থাকুক আজীবন)

Related Posts

5 thoughts on “বিয়ের দিন গাড়িতে উঠানোর পর বউ আর বর এর কিছু আলাপন❤

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *