কিভাবে SEO ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখবেন?

কিভাবে SEO ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখবেন?

আসসালামু আলাইকুম, পাঠকগণ! কেমন আছেন সবাই? আশা করি, আল্লাহ্ তায়ালা সবাইকে সুস্থ্য রেখেছেন। আপনি কি একজন আর্টিকেল রাইটার? বা নতুনভাবে আর্টিকেল রাইটিং শিখতে চাচ্ছেন? তাহলে আজকের এই এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখার নিয়মগুলো অবশ্যই আপনার জন্য। আজকের এই আর্টিকেলে আপনাকে শেখাবো কিভাবে একটি SEO (এসইও) ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখতে হয়। আশা রাখি সম্পূর্ণ লেখাটি পড়লে অবশ্যই উপকৃত হবে।কিভাবে SEO ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখবেন?

আপনি কি জানেন, এসইও কি? আর এসইও ফ্রেন্ডলি কনটেন্টই বা কি? যদি জেনে থাকেন তবে এই প্যারাগ্রাফটা এড়িয়ে যান আর না জেনে থাকলে জেনে নিন। এসইও (SEO – Search Engine Optimization) হলো এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়াতে পারেন বা সার্চ ইঞ্জিন থেকে আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর আনা। আর এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল হলো এমন এক ধরনের আর্টিকেল যেটা সার্চ ইঞ্জিনের সার্চ রেজাল্টে র‍্যাঙ্ক করে অর্থাৎ সার্চ রেজাল্টের প্রথম দিকে থাকে। যেমন- আপনি যখন গুগলে কোন কিছু লিখে সার্চ করেন তখন প্রথমে যে ওয়েবসাইটের কন্টেন্টগুলো পান সেগুলো অন্যান্য কন্টেন্টের তুলনায় অনেক বেশি এসইও ফ্রেন্ডলি। যার জন্য সার্চ ইঞ্জিন সেগুলোকে প্রথম পেইজে দেখায়।

এসইও অপ্টিমাইজড (Optimized) আর্টিকেল লিখবো কিভাবে?

এসইও ও এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল কি তা তো মোটামুটি জানলেন। কিন্তু বলুন তো কভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখবো এবং সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাঙ্ক করাবো? এসইও অপ্টিমাইজড আর্টিকেল লেখার অনেকগুলো কার্যকরী উপায় আছে। নিচে আমরা সেগুলোর চুল-ছেঁড়া বিশ্লেষণ করে আপনাদেরকে জানাবো। নিচের পয়েন্টগুলো অবশ্যই মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

কি-ওয়ার্ড রিসার্চ

কি-ওয়ার্ড রিসার্চ হলো এমন একটি চর্চা বা অনুশীলন যার মাধ্যমে আপনি খুঁজে বের করতে পারবেন মানুষ কোন কি-ওয়ার্ডগুলো লিখে বেশি সার্চ করে এবং কোন কি-ওয়ার্ডগুলো সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাঙ্ক করার সম্ভাবনা বেশি। এসইও অপ্টিমাইজড আর্টিকেল লেখার জন্য আপনাকে অবশ্যই কি-ওয়ার্ড নিয়ে যথেষ্ট গবেষণা করতে হবে। এর জন্য আপনি যে বিষয়ে আর্টিকেল লিখতে চাচ্ছেন প্রথমে সে বিষয়ে গুগলে সার্স করুন। আপনি অনেকগুলো ওয়েবলিংক দেখতে পাবেন এবং সাথে কিছু জিজ্ঞাসিত প্রশ্নও (People also ask) দেখতে পাবেন যেগুলো গুগলে মানুষ লিখে সার্চ করে। আপনি এখান থেকে প্রাপ্ত কি-ওয়ার্ডগুলো কালেক্ট করে বিভিন্ন কি-ওয়ার্ড রিসার্চার টুলের মাধ্যমে এর বিস্তারিত জানতে পারবেন। তেমন একটি কি-ওয়ার্ড রিসার্চার টুল হলো  ইত্যাদি। অনেক বেশিবার সার্চ হওয়াা ও গুরুত্বপূর্ণ কি-ওয়ার্ডটি আপনার আর্টিকেলের টাইটেল হিসেবে লিখুন।

ফোকাস কি-ওয়ার্ড ও কি-ওয়ার্ড ডেনসিটি

ফোকাস কি-ওয়ার্ড হলো সেই কি-ওয়ার্ডটি যেটা আপনার আর্টিকেলের মূল কি-ওয়ার্ড। একটি আর্টিকেলে একাধিক ফোকাস কি-ওয়ার্ড থাকতে পারে। আর কি-ওয়ার্ড ডেনসিটি হলো আপনার সম্পূর্ণ আর্টিকেলে ফোকাস কি-ওয়ার্ডের ঘনত্বের পরিমাণ। এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখার জন্য ফোকাস কি-ওয়ার্ডের ঘনত্বের পরিমাণ হওয়া উচিত ১.৫-২ শতাংশ। অর্থাৎ আপনার আর্টিকেলটি যদি ১০০০ ওয়ার্ডের হয় তাহলে অন্তত ১০-১৫ বার আপনার ফোকাস কি-ওয়ার্ডগুলো আর্টিকেলের বিভিন্ন স্থানে লিখুন। এতে করে আপনার লেখাটি আরও বেশি এসইও ফ্রেন্ডলি হবে। তবে খেয়াল রাখবেন, বেশি মাত্রায় কি-ওয়ার্ড ডেনসিটি না হয়। তাহলে লেখা পড়তে গেলে পাঠক বিরক্ত হতে পারে।

হেডিং ট্যাগ

পোস্টকে আরও বেশি আকর্ষণীয় ও এসইও অপ্টিমাইজড করতে করতে আর্টিকেলের প্রয়োজনীয় স্থানে বিভিন্ন হেডিং ট্যাগ ব্যবহার করুন। মেইন হেডিং, হেডিং, সাব হেডিং ইত্যাদি ট্যাগ ব্যবহার করুন।

ছবি এসইও ফ্রেন্ডলি করা

এসইওর ক্ষেত্রে আর্টিকেলের ফটো অনেক বেশি গুরুত্ব বহন করে। আর্টিকেল লেখার সময় প্রয়োজনীয় ছবি ব্যবহার করুন। ব্লগে ছবি সংযুক্ত করার সময় ছবিগুলোকে নেক্সট জেনারেশন ফরম্যাটে তৈরি করুন। নেক্সট জেনারেশন ফরম্যাট হলো – WEBP, JPEG 2000, JPEG XR ইত্যাদি। এবং ছবিকে রিনেম করে আর্টিকেলের টাইটেলটি লিখে দিন। ছবি এসইও ফ্রেন্ডলি কিভাবে করতে হয় তা জানতে এই আর্টিকেলটি পড়ে নিন।

সুন্দর মেটা ডেস্ক্রিপশন লেখা

মেটা ডেস্ক্রিপশন কি? আমরা যখন গুগলে কোন কিছু লিখে সার্চ করি এবং সার্চ ইঞ্জিন ফলাফল দেখায় সেখানে টাইটেলের নিচে সংক্ষিপ্ত লেখা দেখতে পাওয়া যায় সেটাই হলো মেটা ডেস্ক্রিপশন। মেটা ডেস্ক্রিপশনে আর্টিকেল সম্পর্কে সংক্ষেপে লিখতে হয় যেখানে আপনার আর্টিকেলের একটি ধারনা দেয়া থাকবে। মেটা ডেস্ক্রিপশন সংক্ষিপ্ত হওয়া চাই। এমনভাবে লিখবেন যেন তা অবশ্যই আকর্ষণীয় হয়।

এসইও অপ্টিমাইজড লিংক তৈরি করা

যেকোন আর্টিকেলকে সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাঙ্ক করানোর জন্য এসইও ফ্রেন্ডলি লিংক লেখার বিকল্প নেই। লিংক তৈরি সময় সবগুলো অক্ষর স্মল লেটারে দিবেন এবং মাঝখানে হাইফেন ব্যবহার করবেন। বাংলায় ইউআরএল না বানানোই ভালো। যতটা সম্ভব আর্টিকেলের ইউআরএল সংক্ষেপ রাখবেন। গুগল সবসময় ছোট ইউআরএলকে বেশি প্রায়োরিটি দিয়ে থাকে।

ইন্টার্নাল লিংক তৈরি

ইন্টার্নাল লিংক হলো আপনার ওয়েবসাইটের বিভিন্ন পেইজ ও পোস্টের লিংক আর্টিকেলে যুক্ত করা। আপনি যে বিষয়ে আর্টিকেল লিখছেন তার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ আরও কয়েকটিকে আর্টিকেল আপনার পোস্টে সংযুক্ত করে দিন। এতে করে ভিজিটর আপনার সাইটে দীর্ঘক্ষণ ধরে অবস্থান করবে। যা এসইওতে খুবই কার্যকরী ভূমিকা রাখে।

 

Related Posts

5 thoughts on “কিভাবে SEO ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখবেন?

  1. এসইও এর অনেক টার্ম বুঝতে পারতেছিলাম না। এই আর্টিকেলে খুব পরিষ্কারভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *