স্টুডেন্ট ভিসায় বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরা ইউকে,ইউরোপীয় দেশ, আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, তুর্কী, রাশিয়া,ভারত ইত্যাদি দেশে পড়তে যায়। কারণ সেখানকার ডিগ্রি ও এডুকেশন সিস্টেম অনেক উন্নত।

কিভাবে স্টুডেন্ট ভিসায় এপ্লাই করবো?

আজ আমরা শিখবো কিভাবে স্টুডেন্ট ভিসায় এপ্লাই করবো আর ভিসা হাতে পাবো। যদি আমাদের দেওয়া তথ্যগুলো আপনার কাজে লাগে অবশ্যই পেইজটি শেয়ার করবেন যাতে অন্যরাও এর থেকে কিছু শিখতে পারে।

স্টুডেন্ট ভিসায় বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরা ইউকে,ইউরোপীয় দেশ, আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, তুর্কী, রাশিয়া,ভারত ইত্যাদি দেশে পড়তে যায়। কারণ সেখানকার ডিগ্রি ও এডুকেশন সিস্টেম অনেক উন্নত।

প্রথম ধাপঃ প্রথমে আমরা একটু গবেষণা করবো কোন ইউনিভার্সিটিতে পড়বো কোন বিষয় নিয়ে পড়লে আমরা একটা ভালো ক্যারিয়ার পাবো। যদি আমরা পেয়ে যায় সেই ইউনিভার্সিটি তাহলে সেখানে আবেদন করবো। স্টুডেন্ট ভিসার প্রথম ধাপ হলো আপনাকে ইউনিভার্সিটি থেকে অফার লেটার আনতে হবে। যদি আপনি কন্ডিশনাল অফার পেয়ে যান তাহলে যা যা কন্ডিশন দিয়েছে তা পূূরণ করতে হবে এরপর তা আনকন্ডিশনালে রুপান্তরিত হবে।এতে করে ইউনিভার্সিটি আপনার স্পনসর হবে।

 

দ্বিতীয় ধাপঃ অফার লেটার পাওয়ার পর ইউনিভার্সিটিতে কিছু টিউশন ফি দিতে হবে এরপর ইউনিভার্সিটি আপনার একটা ইন্টারভিউ নিবে। যদি আপনি ইন্টারভিউ ঠিকঠাক মত দেন তাহলে আপনাকে CAS(Confirmation of Acceptance for Studie) লেটারের জন্য আবেদন করতে হবে। আর এরজন্য ইউনিভার্সিটিকে টিউশন ফি এর ৫০% বা ৬০% টাকা দিতে হবে, মেডিকেল টেস্ট এর সার্টিফিকেট দিয়ে, ব্যাাংক স্ট্যাটমেন্ট দিয়ে আবেদন করার পর ইউনিভার্সিটি আপনাকে কাস লেটার দিবে। এতে করে ইউনিভার্সিটি আপনার স্পনসর হয়ে যাবে।

 

তৃতীয় ধাপ: অফার লেটার আর কাস লেটার পাওয়ার পর আপনাকে ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে আর এরজন্য প্রথমে ভিএসএফে এপয়নমেন্ট নিতে হবে। অতপর যদি তা পেয়ে যান আপনাকে IHS ফি প্রদান করতে হবে যা সরকার কতৃক অনুুুমোদিত। এরপর আপনাকে ভিএসএফে গিয়ে আপনার সমস্ত ডকুমেন্টস যেমন, আপনার সার্টিফিকেট ও একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট, মেডিকেল সার্টিফিকেট, ব্যাংক স্ট্যাটমেন্ট, আইয়েল্টস বা ইংলিশ ভাষাার সার্টিফিকেট, অফার লেটার, কাস লেটার, IHS পেইড রিসিট, ভিসা এপয়েন্টমেন্ট লেটার, ভিএস এফ চেকলিস্ট ইত্যাদি। এইগুলো দিয়ে আবেদন করার পর এম্বাসি আপনার ইন্টারভিউ নিবে। যদি আপনি পাশ করেন এবং সমস্ত ডকুুমেন্টস ঠিক থাকে তাহলে যে দেশে আবেদন করবেন সেই দেশের হোম কান্ট্রি আপনাকে ভিসা দিবে। এতে অনেকে তাদের সপ্ন পূরণ করতে পারবেন।

 

 

স্টুডেন্ট ভিসায় বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরা ইউকে,ইউরোপীয় দেশ, আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, তুর্কী, রাশিয়া,ভারত ইত্যাদি দেশে পড়তে যায়। কারণ সেখানকার ডিগ্রি ও এডুকেশন সিস্টেম অনেক উন্নত। একজন শিক্ষার্থী নিজের সুন্দর একটা জীবন ও ক্যারিয়ার পেতে পারে সেই দেশগুলোর ইউনিভার্সিটিতে পড়ে। আমেরিকা, ইউকে,কানাডা ও অস্ট্রেলিয়াতে অনেক টপ রেংকিং এর ইউনিভার্সিটি রয়েছে। যেখানে পড়ালেখার পরিবেশ ও উন্নত মানের শিক্ষা দেওয়া হয় যাতে একজন শিক্ষার্থী নিজের ক্যারিয়ারে সফলতা অর্জন করতে পারে।

আমাদের তথ্যগুলো যদি আপনার ভালো লাগে ও যুক্তি সঙ্গত হয় তাহলে অবশ্যই শেয়ার করবেন।

Related Posts

3 thoughts on “কিভাবে স্টুডেন্ট ভিসায় এপ্লাই করবো?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *