ওয়ার্ডপ্রেস এ কিভাবে User Register Allow করবেন!

কিভাবে একটি ওয়েবসাইট খোলা যায়

 

জেনে নিন কিভাবে ফ্রি ওয়েবসাইট বানাবেন

 

ওয়েবসাইট সম্পর্কে আমরা প্রায় সবাই অবগত রয়েছি। যেকোনো কিছুই ওয়েব সার্ভারে রেখে সবার সামনে উপস্থাপন করা যায় একটি ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে।

 

তাছাড়াও বর্তমান সময়ে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করার বিষয়টি বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আজ, অসংখ্য মানুষ একটি ওয়েবসাইট বানিয়ে তাদের ব্যবসা পরিচালনার মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে ইনকাম করতে পারছে।

 

 

 

এই ক্ষেত্রে আমরা অনেকে মনে করি যে একটি Website বানানোর ক্ষেত্রে অনেক টাকা পয়সা খরচ করতে হবে। যার কারণে আমরা চাই ফ্রীতে একটি ওয়েবসাইট বানাতে।

 

 

 

তবে যদি আপনি চাইছেন একটি সম্পূর্ণ ফ্রি ওয়েবসাইট বানাতে, তাহলে আপনার জন্য অবশ্যই সেই সুযোগটি রয়েছে। এমন অনেক online website builder বা online software রয়েছে যার মাধ্যমে অত্যন্ত কম সময়ে আপনি খুব সহজ একটি ফ্রিতে ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন নিজের মনের মত করে।

 

 

 

হে বন্ধুরা, ঠিক শুনেছেন। আপনি চাইলে খুব সহজেই একটি ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন ফ্রীতে। ওয়েবসাইট বানানোর জন্য আপনার কোন প্রকার technical Knowledge বা Coding Language জ্ঞান থাকার প্রয়োজন নেই।

 

 

 

আপনি চাইলে এ সকল ওয়েব সাইট গুলো থেকে ইনকাম ও করতে পারবেন। আপনি ঘরে বসেই কম্পিউটার বা ল্যাপটপ এর সাহায্যে একটি Free Website বানিয়ে নিতে পারবেন।তাহলে চলুন কয়েকটি online platform এর সাথে পরিচিত হই, যেখান থেকে ফ্রীতে ওয়েবসাইট বানানো যায়।

 

 

 

কিভাবে ফ্রীতে ওয়েবসাইট বানানো যায়?

 

 

অনলাইনে এমন অনেক সাইট আছে যার মাধ্যমে আপনি একটি ফ্রি ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন। তবে আজকে আমি এমন তিনটি উপায় আপনাদের দেখিয়ে দিবো, যেগুলোর মাধ্যমে আপনারা কোনো ঝামেলা ছাড়া Free Website Make করতে পারবেন।

 

 

 

১.Blogger.com: ব্লগার গুগলের নিজস্ব প্রোডাক্ট বা সার্ভিস। একটি ফ্রিতে ওয়েবসাইট বানানোর জন্য সবথেকে ভাল মাধ্যম হচ্ছে Google Blogger, ব্লগার ওয়েবসাইট গুলোকে ব্লগ সাইট ও বলা হয়।

 

 

 

(“Create a unique and beautiful blog, it’s easy and free”)

 

 

 

‘Blogger’ Google এর নিজস্ব Service, যার কারণে। এটি অনেক বিশ্বস্ত। বর্তমানে হাজার হাজার লোকেরা Blogger এর মাধ্যমে একটি ব্লগ ওয়েবসাইট বানিয়ে সেখান থেকে ইনকাম করছে।

 

 

 

ব্লগার দ্বারা আপনি চাইলে পার্সোনাল, ব্যাবসায় পরিচালনা করার জন্য, অনলাইন শপিং ইত্যাদি ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন।

 

 

 

এখানে আপনি অনেক ধরনের Free template বা theme পেয়ে যাবেন, যেগুলো সহজে Customize করে নিতে পারবেন।

 

 

 

সহজে নিজের Gmail account দ্বারা ফ্রীতে একটি সাইট বানাতে পারবেন google blogger এর মাধ্যমে। মাত্র ৩-৪ দিন আপনি প্রেকটিস করলে, ব্লগার এর মাধ্যমে খুবই আকর্ষণীয় একটি ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন।

 

 

 

এছাড়াও রয়েছে Google Adsense দ্বারা ইনকাম করার সুযোগ। যার মাধ্যমে বর্তমানে প্রচুর লোকেরা আয় করে যাচ্ছে।

 

 

 

আপনার যদি একটি ব্লগ/ওয়েবসাইট থাকে তাহলে আপনি সেখানে google adsense এর এড/বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয় করতে পারবেন।

 

 

 

২.Wordpress.com: যদি আপনি website make করার জন্য একটি সোজা উপায় খুঁজছেন তাহলে WordPress আপনার জন্য সেরা উপায় হতে পারে।

 

 

 

ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা অনেকে তাদের প্রফেশনাল সাইট বানিয়ে নিয়েছে। ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে ওয়েবসাইট বানাতে হলে প্রথমত আপনাকে এখানে একটি অ্যাকাউন্ট বানাতে হবে।

 

 

 

অ্যাকাউন্ট তৈরি করা হয়ে গেলে আপনি একটি Online Software পাবেন ওয়েবসাইট বানানোর জন্য। এটাকে WordPress Dashboard বলা হয়ে থাকে।

 

 

 

এখানে আপনি অনেক ধরনের টেমপ্লেট দেখতে পারবেন। আপনার ওয়েবসাইট যে বিষয়ে বানাতে চান সে অনুযায়ী একটি টেমপ্লেট বা থিম আপনি পছন্দ করে নিতে পারেন।

 

 

 

WordPress Dashboard এর বাম পাশে সকল কিছু কাস্টোমাইজ এর অপশন পেয়ে যাবেন।

 

 

 

তো এইভাবে ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা আপনি একটি ফ্রী সাইট আজীবন ব্যাবহার করতে পারবেন। কিন্তু যদি আপনি নিজস্ব ডোমেইন চান তাহলে সেক্ষেত্রে আপনাকে প্রিমিয়াম ডোমেইন কিনে নিতে হবে।

 

 

 

প্রফেশনালি নিজের জন্য কিংবা নিজের ব্যাবসায়ের জন্য অসংখ্য লোকেরা আজ ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করছে। যার জন্য এটি ওয়েবসাইট বানানোর প্রফেশনাল এবং আধুনিক উপায়।

 

 

 

৩. Weebly.com: Weebly online website creator software দ্বারা আপনি অনলাইন শপিং স্টোর, একটি ব্লগ ও একটি আকষর্ণীয় ওয়েবসাইট সবটাই সহজে বানাতে পারবেন।

 

 

 

এই সাইটের Website Making Method অনেকটাই সহজ। কোনো ধরনের Coding Knowledge ও Web Design Knowledge ছাড়া আপনি এটির মাধ্যমে একটি সুন্দর ও প্রফেশনাল মানের ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন।

 

 

 

বিশেষ করে Online Shopping Store বানানোর ক্ষেত্রে Weebly আপনার অনেক কাজে আসতে পারে।

 

 

 

এমনিতে Weebly দ্বারা আপনি একটি ফ্রী ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন। কিন্তু Free Plan এর ক্ষেত্রে কিছু লিমিট রয়েছে।

 

 

 

যেমন:

 

 

 

আপনাকে শুধুমাত্র ৫০০mb স্টোরেজ দেওয়া হবে।

 

 

 

Weebly দ্বারা আপনার বানানো ফ্রী সাইটে বিজ্ঞাপন/এড Display করানো হবে।

 

 

 

আপনাকে Weebly এর sub-domain টি ব্যবহার করতে হবে।

 

 

 

উপরের বিষয়গুলো মেনে আপনি সহজে Weebly দ্বারা একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেলতে পারবেন।

 

 

 

বন্ধুরা এই ৩টি সহজ উপায় দ্বারা আপনারা মনের মত করে একটি Website নিজেদের জন্য তৈরি করতে পারেন। কিন্তু অনেকে প্রশ্ন করে যে, ফ্রী সাইট ভালো নাকি পেইড ভালো।

 

 

 

তাহলে চলুন জেনে নেই Free Website ভালো নাকি Paid website?

 

 

একটি Free Website আর একটি Paid website এর মধ্যে অনেক ধরনের পার্থক্য রয়েছে। যেমন; যদি আপনি এমনিতেই নিজের ব্যক্তিগত কাজের জন্য একটি Website বানাতে চান, সেক্ষেত্রে আপনি Free site make করতে পারেন।

 

 

 

তবে যদি ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে আপনি চান একটি Website তৈরি করতে, এক্ষেত্রে আপনার জন্য অবশ্যই Paid ভালো হবে।

 

 

 

এখানে পেইড এর মান হলো একটি সাইটের ডোমেইন হোস্টিং বা থিম এর খরচ ইত্যাদি গুলোকে।

 

 

 

পেইড এর ক্ষেত্রে আপনি এমন অনেক সুবিধা পাবেন যেগুলো ফ্রী পাবেন না। আর ব্যাবসায়িক কাজে যদি আপনি Website বানাতে চান তাহলে আপনার নানান সুবিধা গুলো প্রয়োজন হবে।

 

 

 

এক্ষেত্রে আমি ব্যাক্তিগত ভাবে পেইড বা ইনভেস্ট করে ওয়েবসাইট বানানোকে সমর্থন করি। কিন্তু বর্তমানে অনেক মানুষ আছেন যারা ফ্রীতে একটি Website Make করে সেটির মাধ্যম আয় করছে।

 

 

 

তবে ইনভেস্ট করলে আপনি সেই পরিমাণে সুযোগ সুবিধাগুলো পেতে পারেন। এছাড়া যদি নিজের ইচ্ছার জন্য কিংবা কোনো সাধারণ কাজের জন্য আপনি চাচ্ছেন একটি website তৈরী করতে সেক্ষেত্রে আপনি ফ্রীতেই তৈরি করতে পারেন।

 

 

 

ওয়েবসাইট বানাতে কত খরচ হবে?

 

 

এমনিতে যদি আপনি নিজের কোনো ব্যাক্তিগত কাজের জন্য চান তাহলে ফ্রীতে একটি ওয়েবসাইট যেকোনো ভাবে বানাতে পারবেন। কিন্তু যদি ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে আপনি প্রফেশনাল ভাবে একটি ওয়েবসাইট দাড় করতে চান সেক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই ইনভেস্ট করতে হবে।

 

 

 

ফ্রীতে সেই সকল সুবিধা আপনি পাবেন না যেগুলো পেইড এর ক্ষেত্রে পাবেন।

 

 

 

ওয়েবসাইট বানাতে খরচ কেমন হবে সেটা নির্ভর করে আপনার ওয়েবসাইটের ধরন কেমন তার উপর। একটি ওয়েবসাইটের ধরনের উপর ভিত্তি করে খরচ নির্ধারণ করা যায়।

 

 

 

তবে একটি ডোমেইন এবং হোস্টিং এর বাবদে প্রতি বছর আপনাকে ৪-৫ হাজার টাকা খরচ করতে হবে। (সাধারণ ওয়েবসাইটের ক্ষেত্রে)। যদি আপনি একটি পেইড থিম কিনেন সেক্ষেত্রে আপনাকে ৩-৪ হাজার টাকা প্রথম অবস্থায় খরচ করতে হবে।

 

 

 

তাহলে সব মিলিয়ে আপনার ৭-৮ হাজার টাকার মধ্যে একটি ভালো ওয়েবসাইট হয়ে যাবে। আর প্রত্যেক বছর খরচ বাবদে ৪-৫ হাজার টাকা খরচ আপনার হতে পারে।

 

 

 

কিন্তু যদি আপনি ওয়েবসাইটটিকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারেন তাহলে আপনি এর থেকে অনেক বেশি আয় করে নিতে পারবেন।

 

 

 

আমাদের শেষ কথা

 

 

বন্ধুরা আজকের পর্বে আমরা জানলাম কিভাবে একটি ফ্রী ওয়েবসাইট বানাতে হয়। আজকের পর্বে এই পর্যন্তই।

 

 

 

আর্টিকেলটা ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। কোনো কিছু বুঝতে অসুবিধা থাকলে বা কোনো ধরনের পরামর্শ থাকলে অবশ্যই মন্তব্য করে জানাবেন। আল্লাহ হাফেজ

Related Posts

2 thoughts on “কিভাবে একটি ওয়েবসাইট খোলা যায়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *