এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?কেন করে কিভাবে করে?

আজকে আমি আপনাদের সামনে যে বিষয়টি নিয়ে হাজির হয়েছে সেটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং ট্রাস্টেড একটি অনলাইন আউটসোর্সিং পদ্ধতি।

বর্তমান সময়ে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে হাজার হাজার তরুণ তরুণী তাদের নিজেদের ক্যারিয়ার অনলাইনের মাধ্যমে বা অনলাইন প্লাটফর্ম এর মাধ্যমে দাঁড় করিয়েছে।

যে কোন ব্যক্তি কোন রকমের পুঁজি ছাড়া ইন্টারনেটের মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে ইনকাম করতে পারে।

 

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

 

এফিলিয়েট মার্কেটিং হল এমন একটি মার্কিন ব্যবস্থা যেটির মাধ্যমে কোন প্রদেশে হারাই একটি প্রতিষ্ঠান সাথে কাজ করা সম্ভব।

এফিলিয়েট ওয়েবসাইট গুলো হল:-

Amazon.com

Aliexpress.com

Darazbd.com

BDshop.com

ইত্যাদি, এই প্লাটফর্ম গুলো এফিলিয়েট প্রোগ্রাম এনেবেল রয়েছে বা চালু রয়েছে। তারা এফিলিয়েট লিংক দিয়ে থাকে। যেকোনো একজন ইউজার এই ওয়েবসাইটগুলোতে গিয়ে। একটি একাউন্ট ক্রিয়েট করে।

যেকোনো একটি প্রোডাক্ট এর লিংক। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় এবং ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রদর্শন করলে। ওই লিংকের মাধ্যমে যদি কোন ভিজিটর। কোন প্রোডাক্ট ট্রাই করে। সেই প্রোডাক্ট এর ক্রয় মূল্য থেকে একটি পার্সেন্টিস আকারে এফিলিয়েট ইউজার অর্থাৎ লিংক শেয়ার করে জমা হবে।

আর এটাই হলো অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম বা এফিলিয়েট মার্কেটিং।

 

এফিলিয়েটেড সুযোগ-সুবিধা:-

এফিলিয়েট মার্কেটিং করার সুবিধা হল। এ মার্কেটিং করার জন্য কোন রকমের পুঁজি দরকার হয়না।

শুধুমাত্র একটি একাউন্ট ক্রিয়েট করে। যে কোন কোম্পানির সাথে এফিলিয়েট মার্কেটিং করা যায়।

 

এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য কি লাগে:-

এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য প্রধানত একটি ওয়েবসাইটের প্রয়োজন হয় বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট লিংক শেয়ার করা হয়। এবং ওই প্রোডাক্ট লিংকে ক্লিক করে কোন ভিজিটর যদি কোন প্রোডাক্ট প্রাই করে তার একটি পার্সেন্টেজ তার একাউন্টে চলে আসবে।

 

আমার জানামতে বাংলাদেশি 2 টি কোম্পানি এফিলিয়েট মার্কেটিং করে থাকে দারাস এবং বিডি শপ

এই দুইটি প্ল্যাটফর্মের সাথে আপনি চাইলে এফিলিয়েট প্রোগ্রামার হিসেবে নিযুক্ত হয়ে। এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারেন।

এছাড়াও অনলাইন জগতে হাজার হাজার প্ল্যাটফর্ম রয়েছে আপনি যে কোন প্লাটফর্মে সাথেই এফিলিয়েট প্রোগ্রামার হিসেবে এফিলিয়েট করে আপনার ক্যারিয়ার ডেভলপ করতে পারেন।

এফিলিয়েট করে লাভবান এর টিপস এন্ড ট্রিকস

সকল জিনিস এর একটি গোপন সিক্রেট থাকে যেটির মাধ্যমে খুব সহজেই এগোনো যায় এফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে কিছু সিক্রেট জিনিস জানা অত্যন্ত জরুরী। আপনি যদি কোনো অ্যাফিলিয়েট করা নিয়ে চিন্তা করে থাকেন তাহলে যেকোনো একটি প্রডাক্টের নিয়ে কাজ করবেন। যেকোনো একটি প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করলে সে ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার ডেভলপ করা কিছুটা ইজি হয়ে যায়। কারন একটি ওয়েবসাইটে যদি একই ক্যাটাগরীর প্রোডাক্ট থাকে সেটি গুগল সার্চ ইঞ্জিনে ভালো একটি প্রভাব ফেলে।

Related Posts

47 thoughts on “এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?কেন করে কিভাবে করে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *