একটি অদ্ভুত লাল রঙের পা

গল্পের ক্যাপশন দেখেই নিশ্চয়ই বুঝতে🙂 পারছেন এটি কোন ধরণের গল্প হতে পারে ।😳
🙂তাই কথা না বাড়িয়ে চলুন শুরু করা যাক
মেয়েটির নাম ছিল রেনু।সে ছিলো খুব চটপটে এবং মিশুক ।সে সহজের মানুষের সাথে মিশে যেত।<br>
সে অজয়পুর নামের একটি গ্রামে বাস করে।তার বাড়িতে আছে তার মা -বাবা এবং ছোট একটি ভাই।তার ভাইয়ের নাম চিকু।তারা দুই ভাই-বোন খুবই মিলেমিশে থাকত।

আর তারা দুই ভাই-বোন এ পাড়া ও পাড়া সবখানেই ঘুরে বেড়াতো।চিকু আম পছন্দ করে।একদিন চিকু রেনুকে বলল ,দিদি আমি আম খাবো। চল না দিদি ,আমরা মিশুদের বাড়ির আম গাছ থেকে একটা আম নিয়ে আসি।

[মিশু হলো রেনুর সমবয়সী ।।তারা একই গ্রামে বাস করে।]

রেনু কিছুতেই রাজি হলো না।কারণ চিকু যে সময় আম খেতে চেয়েছিল তখন বাজে রাত 8:00 টা।

আপনারাই বলুন এত রাতে গাছ থেকে
আম পাড়া যায়???

তার উপর মিশুদের বাড়ির চারপাশে ছিল অনেক ঝোপ-ঝাড়।আর তাছাড়া আমাদের বাড়ি থেকে মিশুদের বাড়ি অনেকদূর। আচ্ছা যাই হোক,রেনু কিছুতেই আম পাড়তে গেল না।কিন্তু সে মনে মনে বলল,  কালকে বিকেলে কোচিং থেকে আসার সময় চিকুর জন্য মোট ৫টি আম আনবো।কিন্তু এখন বলবো না।কাল ওকে Surprise; দিবো।এই বলে রেনু ঘুমিয়ে পড়লো।।চিকুও মন খারাপ করে ঘুমাতে চলে গেল।

পরদিন সকালে রেনু সকুলে গেল এবং বিকাল
4:00 টাই সে গেল কোচিং এ।কোচিং শেষ হয়
প্রায় 5:00 টায়।আজ কোচিং শেষ হতে প্রায় 5:20 হয়ে গেলো।রেনুর কোচিং তার বাড়ি থেকে প্রায় 30 মিনিটের পথ।রেনু কোচিং থেকে বাড়ি ফিরার সময় তার মনে পড়ল আম পাড়ার কথা।তাই সে দ্রুত গতিতে হাঁটতে থাকলো।সে আরেকটু যেতেই মিশুদের বাড়ির আম গাছের সামনে এসে উপস্থিত হলো।সে একটা ঢিল নিল এবং ঢিল ছুঁড়ে মারল আম গাছের উপর তখন দুইটি আম একসাথে পড়ল ।রেনু ওই দুইটি আম কুড়িয়ে নিয়ে ব্যাগে ভরে নিল।রেনু এইভাবে মোট পাঁচটি আমই নিয়ে ব্যাগের মধ্যে রাখল।তখন প্রায় অন্ধকার হয়ে আসছিল।সে ঘড়িতে তাকিয়ে দেখল তখন বাজে ৫:৪০ মিনিট ।রেনু তখন বলল,এই রে অনেক টাইম হয়ে গেল ।এক্ষুনি পা চালাতে হবে ।এই বলে সে যখনই হাঁটতে লাগলো তখন তার কাঁধে কে যেন হাত দিল।সে পিছন ফিরে তাকাতেই দেখল একটি বৃদ্ধ মহিলা ।সাদা শাড়ি পরা,দেখে লাগল প্রায় ১০০বছর হবে,খুব শুকনা;মাথার চুলগুলো এলোমেলো;চোখগুলো ঘোলাটে বর্ণের।রেনু খুব ভয় পেল।বুড়ি রেনুকে বলল কে তুই বাছা???
এইখানে কেন এসেছিস???
রেনু বলল ;আমি আম পাড়তে এসেছিলাম আমার ভাইয়ের জন্য ।বুড়ি তখন বলল;আমাকে একটি আম দিবি??জানিস,অনেকদিন ধরেই পেটে কিছুই পরেনি।রেনুর গলা শুকিয়ে গেল ।সে বলল হ্যাঁ অবশ্যই দিব।এই বলে সে ব্যাগ থেকে ২টি আম বের করে বুড়ির হাতে যখনই দিতে গেল ঠিক তখনই আমটি রেনুর হাত থেকে ফসকে পরে গেল।রেনু&nbsp; তখন আমটি কুড়িয়ে নেওয়ার জন্য নিচু হলো তখন হঠাৎ রেনুর চোখ পড়ল বুড়ির পায়ের উপর।সে দেখল বুড়ির পা দেখতে টকটকে লাল।।। তখন রেনুর বুঝতে বাকি থাকলো না বুড়িটা আসলে কে।।।রেনু উপরে তাকিয়ে দেখল বুড়ির মাথা নেই।।সঙ্গে সঙ্গে রেনু অজ্ঞান হয়ে পরে গেল।।তখন মসজিদ থেকে আজানের আওয়াজ শুনা যাচ্ছিল ।আর আজান দেওয়ার সাথে সাথে ওই বুড়িটিও অদৃশ্য হয়ে গেল ।পরে রেনুর বাবা-মা খুঁজতে খুঁজতে রেনুকে পাই ওই আম গাছের নিচে।।রেনুকে হুজুর এনে সুস্থ করে তোলা হয় ।।
সেদিনের পর থেকে রেনুকে গ্রামের এই পাড়া ও পাড়ায় আর দেখা যায়নি।

তো বন্ধুরা আমার গল্পটি কেমন লাগলো তা অবশ্যই কমেন্টস জানাবে 🙂🙂

Related Posts

20 thoughts on “একটি অদ্ভুত লাল রঙের পা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *